শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১২:১১ পূর্বাহ্ন৯ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মন্ত্রী-এমপিদের কঠোর হুঁশিয়ারি প্রধানমন্ত্রীর

মন্ত্রী-এমপিদের কঠোর হুঁশিয়ারি প্রধানমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ যথাযথভাবে বিমানবন্দরের নিরাপত্তা মেনে চলার বিষয়ে সংসদ সদস্য, মন্ত্রী, বিভিন্ন বাহিনীর প্রধান এবং অন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘আপনারা বিদেশে গেলে যেভাবে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়, একইভাবে আমাদের বিমানবন্দরেও তা করতে হবে। সেটি সবাইকে মেনে নিতে হবে। এ ব্যাপারে কেউ কোনও বাধা দিতে পারবেন না। আর যদি কেউ এক্ষেত্রে বাধা দেন, তাহলে ভবিষ্যতে বিমানে চড়াই বন্ধ হয়ে যাবে। অন্তত আমি সেটা করবো। সেটা আপনাদের মনে রাখতে হবে।’

শনিবার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের (এইচএসআইএ) তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণকাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

এ অনুষ্ঠান থেকেই ‘সোনার তরী’ ও ‘অচিন পাখি’ নামে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের দুটি নতুন ড্রিমলাইনার বোয়িং ৭৮৭-৯ এবং বিমানের একটি নতুন মোবাইল অ্যাপসেরও উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা নিরাপত্তার বিষয় এখন অনেক গুরুত্ব দিয়েছি। আন্তর্জাতিক পর্যায়ের নিরাপত্তার নিয়মাবলি সব যাত্রীকে মেনে চলতে হবে। একটা কথা মনে রাখবেন। সারাদিন আমি দেশের কাজই করি। কাজেই কোথায় কী হয় না হয়, খোঁজখবরগুলো নেওয়ার চেষ্টা করি। সেজন্য অনিয়ম বা ব্যত্যয় ঘটাতে গেলে সঙ্গে সঙ্গে আমার কাছে কিন্তু খবরটা চলে আসে। এটি সবাইকে মনে রাখতে হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি সারাদিন দেশের জন্য কাজ করি। কাজেই কোথায় কী হয়, না হয়, খোঁজ-খবরগুলো নেওয়ার চেষ্টা করি। তাই কেউ সেখানে কোনো রকম অনিময় বা ব্যত্যয় ঘটাতে গেলে সঙ্গে সঙ্গে কিন্তু আমার কাছে খবরটা চলে আসে। এটা সবাইকে মনে রাখতে হবে। আমরা বিমানবন্দরের নিরাপত্তার ব্যাপারে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছি।’

আন্তর্জাতিকভাবে বিমানবন্দরে যেসব নিয়ম অনুসরণ করা হয় সেসব নিরাপত্তা বিধি ও নিয়ম বিমান যাত্রীদের মেনে চলার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় তিনি দেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বৈদেশিক মুদ্রা আয়কারী প্রবাসীদের বিশেষ যত্ন নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা জনশক্তি রপ্তানি করে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা আয় করি। আমাদেরকে তাদের (প্রবাসীদের) দেয়া সুযোগ-সুবিধাগুলো দেখতে হবে। বিমানবন্দরে যেনো তাদেরকে কোনো ধরনের হয়রানির করা না হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে। এ বিষয়ে বিশেষভাবে কাজ করতে হবে।’

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলীর সভাপতিত্বে বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান আরএএম ওবায়দুল মুক্তাদির চৌধুরী এবং বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন সিনিয়র সচিব মো. মহিবুল হক, জাপানের রাষ্ট্রদূত নাওকি ইতো, জাপানের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা জাইকার বাংলাদেশ অফিসের প্রধান প্রতিনিধি হিতোশি হিরতা এবং বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





themesba-zoom1715152249
©জাগো বাংলা.নিউজ কর্তৃক সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত।
Developed By: Nagorik IT